শনিবার , ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
×

বিএনপির কোনো যোগ্যতা নেই দেশ পরিচালনার : পরশ

‘দেশ পরিচালনার কোনো যোগ্যতা বিএনপির নেই বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেছেন। এই যোগ্যতা প্রমাণ করতে হলে দুর্নীতি, নৈরাজ্য, মানুষ হত্যা থেকে বিরত থাকতে হবে। কিন্তু তারা পারবে না। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার যোগ্যতা একমাত্র শেখ হাসিনার আছে।’

আগামী ২৯ জানুয়ারি রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা উপলক্ষে আজ শনিবার দুপুরে রাজশাহী বিভাগীয় যুবলীগের বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
advertisement

শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘ক্ষমতায় আসতে হলে বিদেশি প্রভুদের কাছে গিয়ে লাভ হবে না। ক্ষমতায় আসতে হলে আগে নাকে খত দিয়ে জনগণের কাছে মাফ চাইতে হবে।’
advertisement 4

বিএনপির উদ্দেশে যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, ‘আপনারা এক সময় ৬৩ জেলায় প্রেসক্লাবে ও বিচারালয়ে বোমা মেরেছিলেন। সাংবাদিক ও বিচারালয়কে ভয় পান বলে বোমা মেরে ছিলেন। অথচ এই দুইটা জিনিস রাষ্ট্রের অন্যতম স্তম্ভ। এছাড়া জনগণকে ভয় পান বলে ‘বাংলা ভাই’ তৈরি করে দেশে অরাজকতা করেছিলেন।’

আগামী দিনে যুবলীগ নেতাকর্মীদের রাজপথে থাকার আহ্বান জানিয়ে শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘রাজপথই যুবলীগের ঠিকানা। রাজপথে থেকে সকল নৈরাজ্য ঠেকিয়ে দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর আমাদের প্রাণ শেখ হাসিনা। তিনি থাকলে জনগণের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়। কেননা, বাংলাদেশের সকল অর্জন শেখ হাসিনার হাতে হয়েছে।’

সবাইকে জনসভায় অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে যুবলীগের চেয়ারম্যান পরশ বলেন, ‘এই জনসভাকে ঐতিহাসিক জনসভায় পরিণত করতে হবে। সেই জনসভা থেকে জানান দিতে চাই বিএনপি-জামায়াতের সকল ষড়যন্ত্র গুড়িয়ে দেওয়া হবে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, ‘যারা নতুন করে হাওয়া ভবন, খোয়াব ভবন তৈরি করতে চায় তাদের এই যুবলীগ প্রতিহত করবে। বিএনপি-জামায়াতের স্বপ্ন পূরণ হতে দিবে না। সেই বার্তা নিয়ে শেখ হাসিনা আসবেন। সেদিন প্রধানমন্ত্রীর আগমনে রাজশাহীর সকল জায়গা জনসমুদ্রে হবে তা আর নতুন করে বলতে হবে না।’

আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকতে ও বিরোধী দলে থাকতে রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে এসেছেন। তবে এবারের আগমনে বেশি আনন্দ ও উচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে। এর কারণ তিনি বাংলাদেশ বহু উন্নয়ন করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘রাজশাহীকে বিএনপি এক সময় বলতো ‘বিএনপির ঘাঁটি’। এখন বিএনপি তাদের আর ঘাঁটি বলতে পারে না। আমরা ৭-১০ লাখ জনগণের সমাগম দেখিয়ে দিব। শেখ হাসিনা এসে নির্দেশনা দিবেন, সেই নির্দেশনায় নির্বাচন পর্যন্ত আমরা চলবো। সব সময় আমরা সচেতন থাকবো। আমরা আমাদের দেশকে আরও বহুদূর নিয়ে যেতে চাই।’

যুবলীগের বিভাগীয় বর্ধিত সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ কেন্দ্রীয় যুবলীগ, বিভাগীয় ও জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত রিপোর্ট